On-Page-Seo

অন পেজ এসইও কি ?

Last Updated on

আসসালামু আলাইকুম।আশা করি সবাই ভালো আছেন, আজকে আমি আপনাদের সামনে গল্পে গল্পে অন পেজ এসইও কি? সে সম্পরকে আলোচনা করবো। বন্ধুরা গত পর্বগুলোতে আমরা জেনেছিঃ
এসইও কি ?
• এসইও কেন করবেন ?
কিভাবে গুগল তার সার্চ রেজাল্ট দেখায় ?
• রাঙ্কিং ফ্যাক্টর কি ?
• অ্যালগোরিদম কি ?
এসইও কত প্রকার ও কি কি ?
• ব্ল্যাক হ্যাট এসইও কি ?
• হোয়াইট হ্যাট এসইও কি ?
• গ্রে হ্যাট এসইও কি ?
অন পেজ এসইও কি ?
• অফ পেজ এসইও কি ?
কিওয়ার্ড রিসার্চ কি, কিভাবে গুগল কিওয়ার্ড প্লানার ইউস করে কিওয়ার্ড রিসার্চ করতে পারেন ।
• সেমরাস দিয়ে কিভাবে ইউস করে কিওয়ার্ড রিসার্চ করতে পারেন ।
• সেমরাস দিয়ে কিভাবে নিস সাইট এর জন্য কিওয়ার্ড রিসার্চ করতে পারেন ।
• ওয়ার্ডপ্রেস কিভাবে ইন্সটল করবেন ।
• কিভাবে থিম ইন্সটল করবেন ।
• কিভাবে SSL কিনবেন ও ইন্সটল করবেন ।

তো যাওয়া যাক আমাদের আজকের পর্বে।
করিম তারপরের দিন গেল আইটি এক্সপার্ট ভাই এর কাছে অন পেজ এসইও কি তা জানবার জন্য ।
করিমঃ ভাই ভাল আছেন?
আইটি এক্সপার্টঃ জি ভাল আছি, আপনি ভাল আছেন তো?
করিমঃ ভাই অন পেজ এসইও কি?
আইটি এক্সপার্টঃ অন পেজ এসইও হল এমন একটা ব্যাপার যা আপনি আপনার ওয়েবসাইট এর ভিতর করবেন । এটা একটি টেকনিক্যাল সেট আপ যার মাধ্যমে আপনি আপনার ওয়েবসাইট এর টেক্সট কন্টেন্ট ও ভিজুয়াল কন্টেন্ট এর মাধ্যমে আপনি আপনার ওয়েবসাইট এর ভিজিটর ফ্রেন্ডলি করবেন ।

কেন অন পেজ এসইও করবেন ?

অন পেজ এসইও করার ফলে আপনার ওয়েবসাইট এর সকল কোড নির্ভুল হবে যার ফলে ইউজার আপনার ওয়েবসাইট ইউস করতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করবে ।
আমাদের ওয়েবসাইট এর একটা বড় ফ্যাক্ট হচ্ছে কন্টেন্ট এটা অনেক টা এইভাবে বলা যায় আপনি অনেক মার্কেটিং করলেন আমার দোকানে চাল দাল আলু পেয়াজ সব পাওয়া যায় কিন্তু কাস্টমার এসে দেখল এখানে চাল দাল আলু পেয়াজ কিছু নাই তখন তারা কি আর আপনার দোকানে আসবে ?
করিমঃ জি না ভাই আসবে না।
আইটি এক্সপার্টঃ এবার ভাবেন আপনার দোকানে চাল দাল আলু পেয়াজ আছে কিন্তু এমন ভাবে রাখলেন কাস্টমার এসে কিছু দেখল না তাহলে কি আপনি অনেক কাস্টমার পাবেন?
করিমঃ জি না ভাই আসবে না।
আইটি এক্সপার্টঃ এবার ভাবেন আপনার দোকানে চাল দাল আলু পেয়াজ আছে খুবই সুন্দর ভাবে সাজানো আপনি কেমন কাস্টমার পাবেন?
করিমঃ ভাই অনেক কাস্টমার পাবো ।
আইটি এক্সপার্টঃ এটা এবার আপনি আপনার ওয়েবসাইট এর জন্য চিন্তা ভাবনা করুন তাহলে বুঝবেন অন পেজ এসইও এর গুরুত্ব কি একটু কি ধারনা করতে পারছেন ।

করিমঃ জি ভাই বুঝতে পারছি, এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটা ওয়েবসাইট এর জন্য ।
ভাই অন পেজ এসইও এর কি কি পার্ট আছে ?
আইটি এক্সপার্টঃ অন পেজ এসইও এর অনেক গুলো পার্ট আছে ।
আমি তাদের মেজর পার্ট গুলোকে নিচে উল্লেখ করছি

#১. মেটা টাইটেল : আপনার কিওয়ার্ড কে আপনার কন্টেন্ট এর টাইটেলে উল্লেখ করা । কানেন্ট টাইটেল ৫৫-৬০ ক্যারেক্টারের মাঝে স্পেসসহ রাখা। 
#২. মেটা ডেসক্রিপশন: আপনার কিওয়ার্ড কে আপনার কন্টেন্ট এর মেটা ডেসক্রিপশনে উল্লেখ করা । অবশ্যই তা শুরুতে রাখা আর ডেসক্রিপশন ১৬০ শব্দের বেশি না হওয়া। 
#৩. হেডিং ট্যাগ: আপনার কন্টেন্ট এর টাইটেল কে হেডার ট্যাগ ১ এর মাঝে রাখবেন । এই ছাড়া অন্যান্য সাবহেডিং গুলো h২ ও h৩ এ রাখবেন।

#৪.পোস্ট ইউআরএল: আপনার কিওয়ার্ড কে আপনার কন্টেন্ট এর ইউআরএলে উল্লেখ করা । আর মনে রাখবেন আপনার ইউআরএল যেন ছোট হয়। 
#৫.কনটেন্ট বডি কীওয়ার্ড: আপনার কিওয়ার্ড কে আপনার কন্টেন্ট এর প্রথম প্যারাগ্রাফ ডেসক্রিপশনের মাঝে উল্লেখ করা । অর্থাৎ আপনি প্রথম ১০০ ওয়ার্ড এর মধ্যে রাখেন বা ২০০ ওয়ার্ড এর মধ্যে।  

#৬. এলএসআই ও রিলেটেড কীওয়ার্ড : আপনি আপনার কন্টেন্ট এর মাঝে রিলেটেড কিওয়ার্ড ও এলএসআই কিওয়ার্ড ইউস করবেন । ভাবছেন এই গুলো পাবেন কোথায় ?গুগল থেকে আপনি রিলেটেড কীওয়ার্ড পাবেন। আর এলএসআই পাবেন ubersuggest.io থেকে।  
#৭.ছবিতে Alt Tag ব্যবহার : আপনি আপনার কন্টেন্ট এ  ছবি সংযুক্ত করার পর আপনি অলটার ট্যাগ ইউস করবেন । ট্যাগটি ওয়েবসাইটের পোস্টকে অধিক ফোকাস করে থাকে। যা ওয়েবসাইটকে র‍্যাংক করায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

#৮.ইন্টারলিংকিং : আপনি আপনার কন্টেন্ট এর মাঝে যেগুলো রিলেটেড সেইগুলোকে একটার আর একটার সাথে ইন্টারনাল লিঙ্ক করবেন । ইন্টারলিংকিং আপনার ওয়েবসাইটকে রাঙ্কিং এ এগিয়ে রাখে।

#৯.এক্সটার্নাল লিংক : আপনি আপনার কনটেন্ট এর মাঝে আপনার কন্টেন্ট রিলেটেড ফিল্ডে যারা ভাল দিক নির্দেশনা দিয়েছে তাদের কে লিঙ্ক দিবেন। আপনার কন্টেন্ট এর মাঝ থেকে । এইটা খুব ভালো কাজে দেয় রাঙ্কিং এ।

#১০. কনটেন্ট পাঠক উপযোগী করা : আপনি আপনার কনটেন্ট কে একটা সেপ দিবেন যাতে এটি আপনার কন্টেন্ট এর পাঠকের সকল প্রশ্নের উত্তর দিতে পারে । আপনি যত রকমের প্রশ্ন হতে পারে ওই কনটেন্ট নিয়ে তার উত্তর দিয়ে দেবেন কনটেন্ট এর মধ্যে।

#১১. ক্যানোনিক্যাল ট্যাগের ব্যবহার :আপনার কনটেন্ট এর জন্য ক্যাননিকাল ট্যাগ ইউস করবেন আপনার নিজের কনটেন্ট নিজে নকলের হাত থেকে বাচতে । অনেক সময় আমরা কনটেন্ট নিজেরাই ডুপ্লিকেট করে ফেলি তাই ক্যানোনিক্যালের ব্যবহার করতে হবে।

#১২. লোড স্পিড :আপনি আপনার ওয়েবসাইট এর লোড টাইম কম রাখবেন। যাতে আপনার ভিজিটর বিরক্ত না হয় । লোড টাইম বেশি হলে ট্রাফিক ওই ওয়েবসাইট ভিসিট করতে চায় না।

#১৩. এএমপি ব্যবহার : আপনি আপনার ওয়েবসাইট এর জন্য এএমপি করবেন যাতে করে আপনার ওয়েবসাইট এর মোবাইল ট্র্যাফিক খুবই ভাল ভাবে ও কম সময়ে আপনার ওয়েবসাইট কে ভিজিট করতে পারে ।

#১৪. স্কিমা ব্যবহার : আপনি আপনার ওয়েবসাইট এর জন্য ইস্কিমা ইউস করবেন । যাতে কিছু কমন প্রশ্নের উত্তর ভিজিটর না পড়ে কনটেন্ট এর দিকে তাকালেই বুঝতে পারে । স্কিমা সহজেই ট্রাফিককে একটা সিগন্যাল দিয়ে থাকে কনটেন্ট এর ব্যাপারে। #১৫.সোশ্যাল শেয়ার :আপনার ওয়েবসাইট এর জন্য সোশ্যাল শেয়ার এর অপশন রাখবেন যাতে করে ভিজিটর আপনার যে কোন পোস্ট তার সোশ্যাল অ্যাকাউন্ট এর সবার সাথে শেয়ার করতে পারে । এতে আপনার ওয়েবসাইট এর ইম্প্রেশন গুগল এর কাছে বাড়ে ও কনটেন্ট দ্রুত ইনডেক্স ইনডেক্স হয়। 

করিম ভাই আমি আসলে অন পেজ এসইও এর ক্ষেত্রে এই সব পয়েন্ট গুলি বেশি খেয়াল করি ।
করিম ভাই কি বুঝতে পেরেছেন ?
করিমঃ জি ভাই বুঝতে পারছি, ধন্যবাদ ভাই।
আইটি এক্সপার্টঃ আপনাকেও ধন্যবাদ ।
করিমঃ ভাই আজকে তাহলে আমি আসি, আবার কালকে দেখা হবে ।
আইটি এক্সপার্টঃ ওকে, আল্লাহ হাফেজ।
করিমঃ আল্লাহ হাফেজ।

About the author

নাসির উদ্দিন শামীম

নাসির উদ্দিন শামীম এসইও নিয়ে কাজ করছেন ২০১০ থেকে।ইতোমধ্যে, DevsTeam, LateNightBirds, NShamimPRO এবং আরো অনেক ইন্টারনেট বেসড কোম্পানি ফর্ম করেছেন। NShamim.Com ব্লগে ইন্টারনেট মার্কেটিং নিয়ে বাংলা ভিডিও টিউটোরিয়াল দিয়ে হাজারো বাংলা ভাষাভাষীদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করেছেন। যারা ভিডিও দেখতে পারছেন না, অথবা পর্যাপ্ত ইন্টারনেট না পাওয়ার কারনে ইউটিউব থেকে ভিডিও ডাউনলোড করতে পারছেন না, তাদের জন্যেই মূলত এখানে বাংলায় লিখছেন। সাথেই থাকুন।

View all posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *