আসালামু আলাইকুম । সবাই কেমন আছেন , আশা করছি নিশ্চয়ই ভাল আছেন । আজকে আমি আপনাদের সাথে আলোচনা করব কিভাবে আপনার ওয়েবসাইটটিকে গুগল পেনাল্টি থেকে সেভ করবেন । চলুন তাহলে আমাদের মুল পোস্টে যাওয়া যাক ।

 

২০০০ সালের ডিসেম্বর থেকে গুগল তার রাঙ্কিং অ্যালগরিদম পরিবর্তন করছে ।  গুগল তার user কে বেস্ট রেজাল্ট দেয়ার জন্য কিছু নিয়ম ফল করে serp এ ওয়েবসাইট গুলো শো করে আর সে নিয়ম গুলিই গুগল অ্যালগরিদম । আর আপনি যদি srep  এ টপে থাকতে চান তাহলে আপনাকে গুগল অ্যালগরিদম মেনে আপনাকে আপনার ওয়েবসাইট রেডি করতে হবে । কিন্তু আপনি যদি তা না করেন বা গুগলের নতুন অ্যালগরিদম অনযায়ী আপনার ওয়েবসাইটটি যদি না হয়ে থাকে তাহলে আপনি গুগল দ্বারা পেনাল্টি পেতে পারেন । কিভাবে বুঝবেন গুগল আপনার ওয়েবসিটিকে পেনাল্টি দিয়েছে কিনা ? যদি আপনার ওয়েবসাইট টি গুগল পেনাল্টি দিয়ে থাকে তাহলে লক্ষ্য করবেন আপনার ওয়েবসাইটটি আর serp এ শো করবে না ।

 

চলুন জেনে নিন গুগল কেন একটি ওয়েবসাইটকে পেনাল্টি দেয়-

 

ডুপ্লিকেট কনটেন্ট

কন্টেন্ট মার্কেটিংয়ে কন্টেন্ট হচ্ছে কিং । কন্টেন্ট মোটেও অন্য ওয়েবসাইট থেকে কপি করা যাবে না । কটেন্ট একদম উনিক এবং কোয়ালিটিফুল হতে হবে ।

 

 কিওয়ার্ড স্টাফিং

কিওয়ার্ড স্টাফিং কাকে বলে ? আপনার আর্টিকলে কিওয়ার্কে নিয়ম মেনে use করতে হবে এসইও ফ্রেন্ডলি করে । বেশি বেশি কিওয়ার্ড use করাকে কিওয়ার্ড স্টাফিং বলে এবং এটি করলে পেনাল্টি পেতে পারে আপনার ওয়েবসাইট ।

 

H1 ট্যাগ

H1 ট্যাগ গুগলকে বুঝতে হেল্প করে যে আর্টিকেলটি কি প্রসঙ্গে । কিন্তু বেশি বেশি h1 ট্যাগ use করে গুগল কে বিব্ভ্রান্ত করলে গুগল গিফট হিসেবে আপনার ওয়েবসাইটটিকে পেনাল্টি দিয়ে দিতে পারে ।

 

স্পামিং ব্যাকলিংক কেনা

একটি ওয়েবসাইটকে রাঙ্কিং-এ নিয়ে আসার জন্য ব্যাকলিংক কতটা ভূমিকা রাখে সেটি সবার জানা রয়েছে । কিন্তু ওয়েবসাইটটি যেন তাড়াতাড়ি রাঙ্ক করে সেজন্য না বুঝে শোনে স্পামিং ব্যাকলিংক কিনলে আপনার ওয়েবসাইটের জন্য অনেক খারাপ হবে বিষয়টি ।

 

হিডেন লিংক

হিডেন লিংক গুগল একদম পছন্দ করে না । অনেক সময় ডিজাইনের ভুলার কারণে লিংক হাইড হয়ে যাই তাই সেদিকে খেয়াল রাখুন ।

 

ওয়েবসাইট লোডিং স্পিড স্লো

ওয়েবসাইট আর স্পিড রাঙ্কিংয়ে অনেক বোরো ভূমিকা রাখে । তাই চেষ্টা করুন আপনার ওয়েবসাইটের স্পিড ফাস্ট রাখতে । কিভাবে ওয়েবসাইট স্পিড ফাস্ট করবেন জানতে আমাদের এই পোস্টটি পরে নিতে পারেন- https://bn.nshamim.com/wp-site-speed/

 

আউটবউন্ড লিংক

অতিরিক্ত আউটবউন্ড লিংক use করাকে গুগল খারাপ নজরে দেখে । তাই নিয়ম মেনে আউটবউন্ড লিংক use করুন ।

 

ব্যাকলিংক ক্রিয়েট

ব্যাকলিংক একটি ওয়েবসাইটকে রাঙ্ক করতে অনেক বেশি গরুত্বপুর্ণ ভমিকা রাখে । কিন্তু সেটির জন্য সঠিক পরিকল্পনা দরকার আর দরকার সময় । দ্রুত ওয়েবসাইট রাঙ্ক করার জন্য অল্প সময়ে বেশি বেশি ব্যাকলিংক ক্রিয়েট করা উচিত নয় ।

 

ব্ল্যাকহাট এসেও

ব্ল্যাকহাট এসেও মেথড অবলম্বন করে ওয়েবসাইট রাঙ্ক করলে সেটির কোনো গ্যারান্টি নেই কখন রাঙ্ক হারাবে এবং গুগল পেনাল্টি দিয়ে দিবে । তাই দীর্ঘদিন বিসনেস টার্গেট থেকে থাকলে হোয়াইট হাত মেথড ফলো করুন ।

 

অতিরিক্ত এফিলিয়েট লিংক

আপনি যদি আপনার ওয়েবসাইটের মাধ্যমে এফিলিয়েট মার্কেটিং করতে চান , তাহলে এফিলিয়েট লিংক use করার জন্য একটু সতর্ক হন । বেশি বেশি এফিলিয়েট লিংক একটি পেজ use করা থেকে বিরিত থাকুন ।

 

অন্য ল্যাংগুয়েজের ওয়েবসাইট থেকে ব্যাকলিংক

আপনার ওয়েবসাইট যদি বাংলা ল্যাংগুয়েজ হয়ে থাকে তাহলে , ব্যাকলিঙ্ক বাংলা ল্যাংগুয়েজ ওয়েবসাইট থেকেই নিবেন । আপনার ওয়েবসাইট এক ল্যাংগুয়েজের আর আপনি ব্যাকলিংক নিবেন ইংলিশ ল্যাংগুয়েজ ওয়েবসাইট থেকে এটি করলে গুগল পেনাল্টি দিতে পারে আপনার ওয়েবসাইটকে ।

 

স্পামিং কমেন্ট

কমেন্টিং করে ব্যাকলিংক ক্রিয়েট করা একটি জনকপ্রিয় মেথড । কিন্তু একদম স্পামিং করবেন না যদি আপনার ওয়েবসাইটটিকে পেনাল্টি থেকে সেভ করতে চান ।

 

ইন্টারনাল 404

ওয়েবমাস্টার টুলসের মাধ্যমে আপনার ওয়েবসাইটের 404 এরোর ফিক্স করে ফেলুন । আপনার ওয়েবসাইটি-এ 404 এরোর মানে ভিজিটর সঠিক ইনফরমেশন পাচ্ছে না । আর গুগল তার user কে সবসমই বেস্ট রেজাল্ট প্রোভাইড করতে চায় । তাই আপনার ওয়েবসাইটের রাঙ্কিং ঠিক রাখতে এবং পেনাল্টি দূরে রাখতে 404 এরোর ফিক্স করে ফেলুন ।

 

সাইটম্যাপ ডাটা মিসিং

গুগল XML সাইটম্যাপ use করে আপনার ওয়েবসাইটের স্ট্যাক্সচার বুঝার জন্য । তাই আপনার XML সাইটম্যাপ আপ টু ডেট রাখুন এবং ওয়েবমাস্টার টুলসে সাবমিট করুন । ইম্পরট্যান্ট কিছু যেন মিসিং না থেকে যায় সেই দিকে খেয়াল রাখুন ।

 

মেটা কিওয়ার্ড

মেটা কিওয়ার্ড লিমিটের মধ্যে ব্যবহার না করাই উত্তম । প্রয়োজনভেদে  একটি পেজে ৫টির বেশি মেটা কিওয়ার্ড ইউজ করা থেকে বিরত থাকুন কারণ গুগল এটি পছন্দ করে না । আর গুগল পছন্দ করে না এমন কিছু করা মানেই পেনাল্টি ।

উপরের বিষয় গুলো মেনে চলুন গুগল পেনাল্টি থেকে নিজের ওয়েবসাইটকে সেভ রাখতে ।

 

আপনার যেকোন প্রশ্ন, সমস্যা, অভিজ্ঞতা শেয়ার করতে পারেন আমাদের সাথে ২ ভাবে মেইল ও কমেন্ট এর মাধ্যমে । কমেন্ট এর মাধ্যমে হেল্প চাইলে নিচে কমেন্ট করুন । মেইল এর মাধ্যমে যোগাযোগ করতে চাইলে আমাদের কনটাক্ট আস পেজে যোগাযোগ করতে পারেন ।

আজ এই পর্যন্তই । আগামী কোন আর্টিকেলে আপনাদের সামনে হাজির হব নতুন কোন এসইও ও সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এর  নতুন কোন বিষয় নিয়ে । আল্লাহ হাফেজ ।


1 Comment

Salman Hossain · June 10, 2018 at 6:19 pm

meta keyword ranking e ekhon kono vumikai rakhe na amr jana mote.

Leave a Reply