পিডিএফ সাবমিশন কি? ও কিভাবে করতে হয়?

আপনি যদি পিডিএফ সাবমিশন লিংক খুঁজে থাকেন তার মানে এটি খোঁজার পিছনে আপনার তিনটি কারণ আছে।  
১) হয় আপনি একজন SEO সার্ভিস প্রদানকারী
২) নয়তো আপনি লিংক বিল্ডিং এর জন্য অফ-পেজ এসইও শিখছেন অথবা 
৩) আপনার একটি ওয়েবসাইট আছে যা আপনি রাঙ্ক করার চেষ্টা করছেন  

তিনটার যেইটাই হোক না কেন আপনি এই পোস্ট থেকে যথেষ্ট রিসোর্স পেতে পারেন। এই পোস্টটির মাধ্যমে আপনি পিডিএফ সাবমিশন সম্পর্কে জানতে পারবেন এবং আপনি কিভাবে পিডিএফ সাবমিশন করবেন তা জানতে পারবেন। 

পিডিএফ কি?

পিডিএফ একটি ডকুমেন্ট ফাইল যার উদ্দেশ্য একটি সংগঠিত ডকুমেন্ট ফাইল তৈরি করার জন্য টেক্সট, ইমেজ, ইনপুট, বাটন, লিংক ব্যবহার করতে পারা। মানুষ রিজিউম শেয়ার করতে, ই-বুক, কাজের প্রতিবেদন এবং আরো অনেক কিছু শেয়ার করতে পিডিএফ ফাইল ব্যবহার করে থাকে। এখন আমরা ভাবতে পারি “যদি আমরা কোন ডকুমেন্ট বা পিডিএফ এর মত কিছু শেয়ার করতে পারি, তাহলে আমরা আমাদের ওয়েবসাইটে কিছু ট্রাফিক (ভিজিটর বা ব্যবহারকারী) পেতে পারি”।

আপনি পিডিএফ সাবমিশন থেকে দুটি বেনিফিট পেতে পারেন। প্রথমত, আপনি কিছু ট্রাফিক পেতে পারেন, এবং দ্বিতীয়ত, আপনি আপনার ওয়েবসাইটের জন্য একটি ব্যাকলিংক পেতে পারেন যা আপনাকে Google, Bing, Yandex এবং আরও অনেক সার্চ ইঞ্জিনে রাঙ্ক করতে সাহায্য করতে পারে ৷

চলুন জেনে নেওয়া যাক পিডিএফ জমা দেওয়া বা ডকুমেন্ট সাবমিশন কি।

পিডিএফ সাবমিশন বা শেয়ারিং কি?

বিশ্বব্যাপী সার্চ ইঞ্জিনগুলাতে  অনেক ওয়েবসাইট আছে। পৃথিবীতে যেমন অনেক মানুষ অনেক সম্প্রদায় এবং গোষ্ঠী তৈরি করেছে ঠিক তেমনিভাবেই আপনি ওয়েবে বিভিন্ন ধরনের জায়গা পাবেন। কিছু জায়গা একটি নির্দিষ্ট  উদ্দেশ্যের জন্য যেমন youtube.com যেখানে আপনি শুধুমাত্র ভিডিও পোস্ট করতে পারেন তেমনিভাবে   flicker.com আপনি শুধুমাত্র ছবি আপলোড বা জমা দিতে পারেন। অন্যদিকে, facebook.com এ আপনি ছবি, ভিডিও এবং ফাইল আপলোড করতে পারেন। facebook সামাজিক মিডিয়া হওয়ায় আপনি আপনার মতামতও পোস্ট করতে পারেন।

এবার পিডিএফ নিয়ে কথা বলি। ইউটিউব এবং ফ্লিকারের মত, আপনি কিছু ওয়েবসাইট পাবেন যেখানে আপনি পিডিএফ পোস্ট করতে পারবেন। এছাড়াও, আপনি কিছু জায়গা পাবেন যেখানে আপনি পিডিএফ ডকুমেন্টসহ অনেক কিছু পোস্ট করতে পারবেন। পিডিএফ সাবমিশন অফ-পেজ এসইও-এর একটি পদ্ধতি যেখানে আমরা মানুষ বা ব্যবহারকারীদের জন্য কনটেন্ট বা নথির পিডিএফ ডকুমেন্ট শেয়ার করি।

এক কথায়, আপনি যখন SEO উদ্দেশ্যে একটি ওয়েবসাইটে পিডিএফ ফাইল আপলোড বা জমা দেন, তখন আপনার ওয়েবসাইটে ট্রাফিক পেতে বা আপনার ওয়েবসাইটে ব্যাকলিংক হলে তাকে পিডিএফ সাবমিশন বলা হয়। SEO-তে অন্য ওয়েবসাইটে (যা আপনার নয়) পিডিএফ জমা দেওয়া অফ-পেজ এসইও পরিকল্পনার একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ।

পিডিএফ শেয়ারিং এর সুবিধা ?

সুবিধাসমূহ:  
১) পিডিএফ সাবমিশন আপনার ওয়েবসাইট ডু-ফলো এবং নো-ফলো ব্যাকলিংক প্রদান করে।
২) এটা আপনার ওয়েবসাইট এ  ট্রাফিক বাড়াতে সহায়তা করবে।
৩) আপনার বিষয়বস্তু আরো এক্সপোজার পাবে।
৪) আপনার ওয়েবসাইট রাঙ্কিং বৃদ্ধি পাবে।

কিভাবে পিডিএফ ফাইল তৈরি করবেন

১) প্রথমত আপনার পিপিটি বা পিডিএফ বা DOC এর প্রয়োজন অনুযায়ী কনটেন্ট লিখতে হবে।
২) সবসময় নিশ্চিত করুন যে আপনার কনটেন্ট সর্বোচ্চ মানের, এনগেজমেন্ট এবং তথ্যের সম্মৃদ্ধ হয়। 
৩) কনটেন্ট অংশে আপনি কীওয়ার্ড যোগ করতে ভুলবেন না। 
৪) আপনার পিডিএফ বা পিপিটি বা ডকের ধরন এবং বিষয় অনুযায়ী ছবি যোগ করুন।
৫) আপনাকে ইমেইল, ফেসবুক, লিঙ্কডইন বা জিমেইল আইডি ব্যবহার করে নিবন্ধন বা সাইন আপ করতে হবে।
৬) একবার নিবন্ধিত হয়ে গেলে পিপিটি বা পিডিএফ অথবা ডক জমা দিতে শুরু করুন।
৭) সবসময় মনে রাখবেন সার্চ ইঞ্জিন এ আসার জন্য সঠিক ট্যাগিং ব্যবহার করতে হবে।
৮) আপনি এই ফরম্যাটে আপনার ফাইল জমা দিতে পারেন – PPT, PPS, PDF অথবা Doc.
৯) সঠিক এবং সুপরিচালিত অ্যানিমেশনের মাধ্যমে পিপিটি বা পিডিএফ বা DOC এর সহজভাবে বুঝানো নিশ্চিত করুন।

পিডিএফ জমা দেওয়ার প্রক্রিয়া কি?

যে সব সাইটে অ্যাকাউন্ট রেজিস্ট্রেশন প্রয়োজন সেসব সাইটে পিডিএফ বা পিপিটি বা ডক সাবমিশন করতে পারবেন।

ধাপ ১ – ওয়েবসাইটে যান এবং লগইন/রেজিস্ট্রেশন পৃষ্ঠা খুঁজুন, তারপর সাইন আপ করুন। আপনি তৃতীয় পক্ষের মাধ্যমে লগইন বেছে নিতে পারেন কারণ পিডিএফ বা পিপিটি বা ডক সাবমিশন সাইটের অধিকাংশই জিমেইল, ফেসবুক, টুইটার ইত্যাদির মাধ্যমে লগইন করার সুবিধা আছে।

ধাপ ২ – সাইন ইন করার পর আপনি আপনার পিডিএফ বা পিপিটি বা ডক ফাইল জমা দিতে পারবেন।

যে সব সাইটে অ্যাকাউন্ট রেজিস্ট্রেশনের প্রয়োজন নেই সেসব সাইটেও পিডিএফ বা পিপিটি বা ডক জমা দেওয়ার উপায় আছে। 

একমাত্র ধাপ – আপনার যেকোন পিডিএফ, পিপিটি, ডক ফাইল নির্বাচন করুন এবং সাবমিট ক্লিক করুন এবং এর মাধ্যমে আপনি পিডিএফ, পিপিটি, ডক সাবমিশনের জন্য আপনার অনুমোদিত লিংক পাবেন। 

PPT/PDF/DOC তৈরীর সময় যে বিষয়গুলো মনে রাখতে হবে;    

পিপিটি:
PPT তৈরি করার সময় নিচের বিষয়গুলা লক্ষ্য রাখুন :

– খুব বেশি ওয়ার্ড এর কনটেন্ট এর প্রয়োজন নাই। 
– কনটেন্ট অনুযায়ী ছবি প্রদান করুন। 
– রেফারেন্স লিংক রাখুন।

PPT জমা দেওয়ার সময় আপনি ডেস্ক্রিপশনে বক্সে কীওয়ার্ড ব্যবহার করুন।

পিডিএফ:

পিডিএফ তৈরি করার সময় নিচের বিষয়গুলা লক্ষ্য রাখুন

-ইউনিক কনটেন্ট ব্যবহার করুন। 
-এক বা একাধিক ছবি ব্যবহার করা যেতে পারে  
-কীওয়ার্ড স্টাফ করবেন না  
– কীওয়ার্ড ব্যবহার করুন। 
পিডিএফ জমা দেয়ার সময় আপনি ডেস্ক্রিপশন বক্সে কীওয়ার্ড ব্যবহার করুন।

ডক:

DOC তৈরি করার সময় নিচের বিষয়গুলা লক্ষ্য রাখুন: 

-ইউনিক কনটেন্ট ব্যবহার করুন।
-ওয়ার্ড ফরম্যাটে ডকুমেন্টটি তৈরি করুন।
-এক বা একাধিক ছবি ব্যবহার করা যেতে পারে  
-কীওয়ার্ড স্টাফ করবেন না
– কীওয়ার্ড ব্যবহার করুন।
DOC ফাইল জমা দেওয়ার সময় আপনি ডেস্ক্রিপশন বক্সে কীওয়ার্ড ব্যবহার করুন। 

আপনার ইমেইলে বাংলায় ইন্টারনেট মার্কেটিং এবং এসইও রিলেটেড লেটেস্ট খবর ও আপডেট পেতে চান? সাবস্ক্রাইব করে রাখুন।

Leave a Comment

Share via
Copy link