এসইও প্রসেসগুলো এতো ঘন ঘন পরিবর্তন হয় কেনো? কেনই বা সবসময় এসইও নিয়ে পড়াশুনা করে যেতে হয়?

এক কথায় বলতে গেলে, এসইও এর পুরো প্রক্রিয়াটা সার্চ ইঞ্জিন নির্ভরশীল। যেহেতু সার্চ ইঞ্জিন্স যেমন গুগল, বিং, ডাকডাকগো – এরা সবাই নিয়মিত তাদের সার্চ ইঞ্জিন এলগোরিদম চেঞ্জ করে বা আপডেট করে; এ সাথে সাথেই এসইও করার পদ্ধতিতেও চেঞ্জ আনতে হয়।

যারা নতুন শুরু করছেন – তারা এই ঘন ঘন চেঞ্জে প্রচণ্ড বিরক্ত হন। এসইও ইন্ডাস্ট্রি নিয়ে এই যে পড়াশুনার মধ্যে থাকতে হয় নিয়মিত এইটা অনেকেই মেনে নিতে পারে না।

কারণ; অনেকেই মনে করে – ইন্টারনেট মার্কেটিং হলো সোনার ডিম পাড়া হাসের মতো। একবার বড় করলাম – সে ডিম দিতেই থাকবে, দিতেই থাকবে। বা একবার শিখলাম, আমার আর জীবনে এই সেক্টরে আর কোন কিছু শিখতে হবে না।

আদতে কিন্তু তা না।

এই সেক্টর থেকে যেমন ভালো আয় করা সম্ভব, তেমনি খাটতেও হয় প্রচুর। যারা এইটা মানবেন, তারাই ভালো করতে পারবেন।

একটা কমেন্ট পড়ে আসি, চলুন।

আমাদের SEO Mastermind Bangladesh Facebook Group এ একজন একটা কমেন্ট করেছেন এই প্রসঙ্গটা নিয়ে এবং আমি বোঝানোর চেষ্টা করেছি। কথোপকথনটা ছিলো এমনঃ

প্রশ্নঃ

ভাই আপনারা কেন এতো ঘোল খাওয়ান, যারা নতুন তাদেরকে?

আমার উত্তরঃ

Jemon? Please explain.

প্রশ্নঃ

seo কেন শিখবো? অবশ্যই সাইট র‍্যাংক করানের জন্য। কিন্তু যারা নতুন তারা আপনাদের মতো একেকজন seo এক্সপার্টদের কাছে আসে seo শিখতে। আর এখানেই ঝামেলা আপনারা এক্সপার্টটা তৈরি করেন। যাতে মাথা গুলিয়ে যায়। একটা সাইট র‍্যাংকিং এর জন্য গুগল র‍্যাংকিং ফ্যাক্টর আছে ২০০ বা কিছু বেশি এরকম। আর আমার মনে হয় গুগলের সেই সাইট র‍্যাংকিং ফ্যাক্টরকে আপনারা বানিয়েছেন দুই হাজার। এতো এতো প্যাচ!!!

আর এখন পর্যন্ত ভালোভাবে নিশ ও কিওয়ার্ড কিভাবে পারফেক্টলি সার্চ করে সেটারও পর্যন্ত পুরোপুরি ধারনা দেবার মতো ভিডিও বা গাইনলাইন খুজে পেলাম না। এক seo তে যদি এতো প্যাচ থাকে তাহলে এটা শেখার আগ্রহ থাকে কি? আপনি বলেন? ইউটিউবে একরকম, আপনি বলেন একরকম, আরেকজন বলে আরেকরকম।

আপনারা এতো বছর এই ডিভিশনে আছেন আপনার কি জানেন না গুগল কতগুলো সাইট র‍্যাংকিং এর জন্য যে টার্ম কারন এগুলো অল্প অল্প করে মাথায় আসে।

আমার উত্তরঃ

ভাই, সমস্যা নাই। আপনি কেন একটু হতাশ বুঝতে পেরেছি। আসলে, SEO রা যখন একটা জিনিস বুঝে ফেলে, তখনি গুগল ঐটা নিয়ে আপডেট নিয়ে আসে। যদি তারা আপডেট না নিয়ে আসে, তাহলে তো সবাই সার্চ র‍্যাঙ্কিং অ্যালগোরিদমকে গেইম করার চেষ্টা করবে। তখন গুগলের কোয়ালিটি বলতে কিছুই থাকবে না – কারণ সবাই যেন তেন সাইট বানিয়েই র‍্যাঙ্ক করে ফেলবে।

সুতরাং, আপনি যখন ডালে ডালে ঘুরবেন; গুগল তখন ঘুরবে পাতায় পাতায়।

🙂
  • Save
আর গুগল কিভাবে পাতায় পাতায় ঘুরছে, সেটা গুগল কোথাও বলে দেয় না, মানে এক্স্যাক্ট হিন্টস দেয় না – কিছু জেনেরিক জিনিস বলে। SEO রা সেই জিনিষগুলো নিয়েই প্রতিনিয়ত এক্সপেরিমেন্ট করে এবং র‍্যাঙ্কিং এর প্যাটার্ন বোঝার চেষ্টা করে। একবার প্যাটার্ন বুঝে ফেললে, গুগল আবার নতুন আপডেট নিয়ে আসে। আবার এবং আবার। আবার। এইভাবে চলতেই থাকে।

এখন বলেন, আপনি গাছের নিচে বসে থাকলে গুগলকে ধরতে পারবেন? আপনাকে পড়াশুনা করতে হবে, পড়াশুনা করতে করতে একসময় একটা ডালে উঠতে পারবেন। আবার এই পড়াশুনা এবং এক্সপেরিমেন্ট চালু রাখলে সেই ডাল থেকে পাতায় কিভাবে যেতে হবে – সেটাও কিছুটা বুঝে যাবেন। তারমানে, গুগল এবং অন্যান্য সার্চ ইঞ্জিন প্রতিনিয়ত আপডেট হচ্ছে; তাই মেথড চেঞ্জ হচ্ছে, কাজ করার ধরন পাল্টাচ্ছে।

নোটঃ Sistrix এর মতে (https://www.sistrix.com/…/how-often-does-google-carry…/) গুগল প্রায় প্রতিদিনই তাদের অ্যালগোরিদম আপডেট করে। আবার মাঝে মাঝে দিনে কয়েকবার করেও আপডেট দেয়।

🙂
  • Save
আশা করি উত্তর পেয়ে গেছেন। এইগুলো ঘোল না, বরং সার্চ ইঞ্জিন অ্যালগোরিদম এর সাথে নিজেকে খাপ খাইয়ে নেয়ার প্রতিদিনকার চেষ্টা আর সেই চেষ্টার কিছুটা বাংলায় আপনাদের সাথে শেয়ার করা। এই আর কি।
🙂
  • Save

আবার প্রশ্নঃ

ভাই, সবই ঠিক আছে বুঝলাম, কিন্তু বেসিকে এতো চেন্জ থাকবে কেন? আমরা সবাই জানি ভবন নির্মাণ করতে ইট, বালি, সিমেন্ট দরকার এবং এর একটা নির্দিষ্ট পরিমাপ আছে। এটাই বেসিক, তাইনা?

কিন্তু এই বেসিকটাই যদি একেক মিস্ত্রি যদি একেক পরিমাপ বলে তাহলে কোনটা সঠিক নতুনরা কিভাবে বুঝবে বলেন?

আমার উত্তরঃ

গুগলের কোর আপডেটের নাম শুনেছেন? কোর মানে হচ্ছে পুরা ব্যাসিক এবং মূল অ্যালগোরিদমই গুগল চেঞ্জ করে ফেলে। গুগল নিজের ব্যাসিক চেঞ্জ করলে আমাদের করতে হবে না?


এইটা একটা ভিন্ন একটা ইন্ডাস্ট্রি ভাই। এইখানে জাগতিক অফলাইনের ব্যাসিক দিয়ে চিন্তা করলে ১ মিনিট ও দাঁড়িয়ে থাকতে পারবেন না। আর একেকজন্য একেক রকমের বলে – কারণ অনেক মিসকন্সেপশন আছে।

আবার একেক জন্য একেক ভাবে কাজ করে সাফল্য পায়। আপনি সবার মেথড নিয়ে নিজের মতো করে কাজ করবেন… তখন দেখবেন নিজেই নিজের মতো করে একটা বানাতে পারবেন। 🙂

YK Mobin এর উত্তরঃ

Bhai computer e jmon ajke Ctrl + C diye copy kora jay. Onek years ageu arokom e chilo. SEO te last years jevabe agano jeto ei years ovabe agale hoyna. Kichuta holeu changes ashse.

And apnar kotha moto keu jodi oi 200 ta rules mukhosto kore kaje name shey dui din por mukh thubre porbe. Karon oi 200 tar majhe 2000 er beshi hidden algorithm ache ja experience er sathe sathe bujha jay. Sobar sob sector e interest thakbena.

Apni jodi arokom environment e nijeke manate na paren tahole apnar SEO somporke aro duibar think kora uchit bole ami mone kori.(dont take it personally

😊
  • Save
)

Yaqub Nipu এর উত্তরঃ

ছোট একটা উদাহরণ দেই তাহলে ব্যাপারটা ক্লিয়ার হবে, আপনি ২০০ রাঙ্কিং ফ্যাক্টর বললেন না? ঐ ২০০ এর মধ্যে কিন্তু পেজ স্পীড এর কথা নাই। কিন্তু জানেন ২০২০ এর প্রথম থেকে পেজ স্পীড ইস্যু রাঙ্কিং ফ্যাক্টর। ঐটা গুগল বলে ২০২১ এর প্রথম দিকে। আরে ভাই ঘোল তো খাওয়ায় গুগল।

আর আপনি নিজেই honestly বলেন আপনি আমাদেরকে মেনশন করে কখনো কোনো কনফিউশন দুর করতে কয়টা প্রশ্ন করেছেন? কিন্তু ঠিকই blame দিয়ে দিলেন। কীওয়ার্ড রিসার্চ এর ক্ষেত্রে এই গ্রুপে যা দেয়া আছে আমি চ্যালেঞ্জ করে বলতে পারি কেউ এত্ত ট্রিক share করে নাই। তাও এত্ত সাবলীল ভাবে। আপনি কোথাও আটকে গেলে আমাদেরকে ask করবেন।

এইজন্যে আপনাকে আরো ভালো ভাবে জানতে হবে এস ই ও চেঞ্জ হচ্ছে প্রতিনিয়ত আপনি যদি নিজেকে ঐ চেঞ্জ এর সাথে মানিয়ে নিতে না পারেন বা এইগুলা মেনে নিতে না পারেন তাহলে এস ই ও আপনার জন্য না। আপনি যেকোনো প্রশ্ন করেন আমাদের মেনশন করে আমরা আপনার কনফিউশন দুর করে দিবো। আর হা কীওয়ার্ড রিসার্চ বেসিক এর মধ্যে পড়ে না। এস ই ও বেসিক আগের মতন আছে।

ওখানে আরো অনেকই প্রশ্ন করেছেন এবং উত্তর দিয়েছেন – পুরো থ্রেডটা এখানে পাবেন

ধন্যবাদ।


আপনার ইমেইলে বাংলায় ইন্টারনেট মার্কেটিং এবং এসইও রিলেটেড লেটেস্ট খবর ও আপডেট পেতে চান? সাবস্ক্রাইব করে রাখুন।

Leave a Comment

Share via
Copy link