how to get quickly google index

কিভাবে আপনার নতুন সাইটি খুব দ্রুত গুগলে ইন্ডেক্স করাবেন?

Last Updated on

Ping Sites to Rocket Up Your Indexing in no Time! – 2018

চলে আসলাম আপনাদের মাঝে আবারো নতুন আরেকটি টপিক নিয়ে। আশা করছি সবাই নিশ্চই ভালো আছেন? আমিও অনেক অনেক ভালো আছি। How to Quickly Index  Google Your Site টাইটেল দেখেই বুঝতে পারছেন আজকের বিষয়বস্তু কি? এই ব্যাপারে এক বড় ভাইয়া আমাকে সাহায্যা করেছে আমাকে আজ বুঝিয়েছে এই ব্যাপার টি তই আপনাদের সাথে শেয়ার করা। তো চলুন কিভাবে নতুন সাইটটি খুব দ্রুত গুগলে ইন্ডেক্স করেতে পারি তা নিয়ে আলো চনা করে ফেলি।

কিভাবে আপনার ওয়েবসাইট পিং করতে পারেন এবং খুব দ্রুত গুগলে ইন্ডেক্স করাতে পারেন।

 আপনি কি Google থেকে ফ্রি অরগানিক ট্রাফিক চাচ্ছেন? অথবা নতুন ওয়েবসাইট করেছেন কিন্তু গুগলে ইন্ডেক্স হচ্ছেনা? বা হতে সময় নিচেছ অনেক?
আপনি যদি নতুন ওয়েবসাইট করে থাকেন এবং আপনার ওয়েবসাইট যদি গুগলে ইনডেক্স করাতে চান তাহলে আপনাকে প্রথমে দেখে নিতে হবে আপনার ওয়েবসাইট এর সেটিংস গুলো সব ঠিক আছে কিনা বলাযেতে পারে অন-পেইজ এর সব সেটিং ঠিক ঠাক আছে কিনা।
এর পর আপনি আপনার ওয়েবসাইট গুগল ওয়েবমাস্টারের সাথে কানেক্ট করে নিন এবং সাইটম্যাপ সেটাপ করুন। এবং এর পরই আপনার কাজ হচ্ছে আপনার সাইটটি পিং করানো। সইট পিং করে কিভাবে নিশ্চয় অনেকে যানেন তাই সেটা নিয়ে আর নতুন করে বল্লাম না।

পিং কি আসেন একটু জেনে নেই:

আপনার ওয়েবসাইটে আপনি নতুন একটি কন্টেন্ট পাবলিশ করেছেন, গুগল এবং অন্যান্য সার্চ ইঞ্জিন রোবোটকে আমন্ত্রণ জানানো এবং সেটা তাদের ডেটাবেজে অ্যাড করানোর জন্য রিকোয়স্ট করাকেই আমরা সাধারনত পিং বলে থাকি।

পিং সাইট কি ?

পিং সাইট এক ধরণের অনলাইন ভিক্তিক সরঞ্জাম যা আপনার প্রদত্ত URL টি বেশ কয়েকটি  সার্চ ইঞ্জিন, ডিরেক্টটি ইত্যাদি অন্যান্য জায়গায় পাবলিশ করে অথবা জমা দিয়ে থাকে।

কি ভাবে পিং টুলটি ব্যবহার করবেন?

আপনাকে শুধু URL টি লিখতে হবে যা আপনি পিং করতে চান এবং সেই পৃষ্ঠায় শিরোনাম লিখতে চান। তারপর পক্রিয়া টি শুরুকরতে কেবল পিং বাটনে ক্লিক করুন। কিছুখন পর আপনি আপনার নিশ্চিত বার্তাটি দেখতে পারবেন। নিম্নে চিত্রটি দেওয়া হলো আপনাদের বোঝার সুবিধার জন্য।

আশা করি আপনি বুঝতে পেরেছেন কিভাবে আপনার সদ্য প্রকাশিত কোন পোস্ট বা ওয়েবসাইটকে আপনি খুব দ্রুত পিং এবং ইন্ডেক্স করাতে পারেন। সবসময় চেস্টা করবেন আপনার কনেটন্ট কোয়ালিটি এবং ফরমেন্টিংটা যেন সুন্দর থাকে। এতে করে আপনার ভিজিটর আপনার কন্টেন্ট পছন্দ করবে।

কেন আপনার পিং সেবাটি ব্যবহার করা উচিত?

আপনি এই পিং অপশনটি ব্যবহর করে আপনার সাইটের URL বা আপনার ব্যাকলিংক  উৎসগুলি খুব দ্রুত এবং সহজেই ইন্ডেক্স করতে পারবেন। মনে রাখবেন, ওয়েবের প্রায় ৮০% ব্যাকলিংগুলি অবহেলা করার কারণে ডি-ইনডেক্স হয়ে হয়ে যায়। সুতরাং, এসিও প্রচার অভিযানে অধিকাংশ ব্যার্থ এবং প্রত্যাশিত ফলাফল দেখতে পায়না।

অতিরিক্ত পিং করার ফলে কোন নীতিবাচক প্রভাব আছে কি?

মনে করেন যদি আপনি এক দিনের মধ্যে আপনার এক বন্ধুকে একই প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করেন তাহলে কি হবে? অবশ্যই সে আপনার সাথে বিরক্ত হবে। একই ভাবে অল্প সময়ের মধ্যে একই URL টি ওভার পিং না করাই ভাল যত পারা যায় সেইম URL পিং বেশির ভাগ না করা এড়িয়ে যাওয়া ই সবথেকে উত্তম। আপনি আপনার ওয়েবসাইটের একই URL টি পিং এর জন্য ২-৩ বার ব্যবহার করতে পারেন। একটি পিং টুল দিয়ে একবার পিং করা ভাল মনে করি এবং ২ বা ৪ টা টিং ‍টুল ব্যবহর করবেন।

ফ্রি তে পিং করার জন্য কয়েকটি পিং সাইটের লিষ্ট দেওয়া হলো নিম্নে যা আপনার সাইটকে ইন্ডেক্স করার ক্ষেত্রে বুস্ট করবে।

এবং পাশাপাশি চেস্টা করবেন নির্দিষ্ট সময়ে কন্টেন্ট পাবলিশ করতে। আমি বোঝাতে চাচ্ছি যদি আপনি প্রতি শনিবার ১ টি কন্টেন্ট পাবলিশ করেন তাহলে আগামি শনিবারেও ঠিক একই সময়ে নতুন পোস্ট করতে। কারন সার্চ ইঞ্জিন অপ্টিমাইজেশন এ এটা অনেক ভালো প্রভাব ফেলে।
এইছাড়া কিছু সমস্যা থাকতে পারে আপনার সাইট এ ঐ ইস্যুগুলোও দেখতে হবে। নিচে তার আলোচনা করা হলো ;
১। Google Search Console এ ব্লগ সাবমিটঃ
একটি নতুন ব্লগ এবং ব্লগ পোস্ট গুগল সার্চ ইঞ্জিনের সাথে পরিচয় করিয়ে দেওয়ার জন্য Google Search Console এ সাবমিট করতে হয়। গুগল সার্চ কনসলে আপনার ব্লগের সাইটম্যাপ সাবমিট করে রাখলে গুগল আপনার ব্লগটি সম্পর্কে খুব সহজে ধারনা পেয়ে যাবে এবং সেই সাথে গুগল বট আপনার ব্লগটিকে দ্রুত Crawl ও Index করে নিবে।
২। ভালো মানের কন্টেন্টঃ
একটি ব্লগ পোষ্ট দ্রুত Index হওয়ার পূর্বশর্ত হচ্ছে ভালোমানের ইউনিক আর্টিকেল লিখা। আপনি যখন কন্টেন্ট লিখবেন তখন এই বিষয়টি খেয়াল রাখবেন যে, আপনার কন্টেন্ট শুধুমাত্র সার্চ ইঞ্জিনে Index হওয়ার জন্য নয়, বরং পাঠকদের ধরে রাখার জন্য কোয়ালিটি আর্টিকেল লিখতে হবে ।
৩। নিয়মিত পোস্ট করাঃ
আপনি যদি প্রতিদিন একটি করে পোস্ট পাবলিশ করতে পারেন তাহলে সার্চ ইঞ্জিন বট প্রতিদিন অন্তত একবার হলেও আপনার ব্লগ ভিজিট করবে এবং আপনার নতুন পোস্ট ইনডেক্স করার নিমিত্তে আপনার ব্লগে আসবে। আপনার ব্লগে মাসে একটি বা দুটি পোস্ট শেয়ার করে কোনভাবে ব্লগের Crawling Rate বৃদ্ধি করতে পারবেন না। তখন বট অনেক সময় নিবে।
৪। Backlinks করাঃ
ভালোমানের ব্লগের সাথে আপনার ব্লগের Backlinks তৈরি করে নিতে পারলে আপনার ব্লগের যেকোন নতুন পোস্ট খুব দ্রুত Index হয়ে যাবে। বিশেষশত ডু-ফলো ব্যাকলিংক। কারণ ভালোমানের ব্লগগুলোতে সার্চ ইঞ্জিন বট সবসময় ভিজিট করে। ডু-ফলো ব্যাকলিংক থেকে গুগল একটা ভালো সিগন্যাল পায় ও সাইট এর একটা ভোটও বাড়ায়।
৫। পুরাতন পোস্ট আপডেট করাঃ
পুরাতন পোস্টগুলো পুনরায় আপডেট বা রি-রাইট করা হচ্ছে সে বিষয়গুলোকে গুগল গুরুত্বসহকারে দেখে। এক্ষেত্রে আপনার ব্লগে যদি অনেক বেশি পুরাতন পোস্ট থাকে এবং সেগুলোতে ভিজিটর না থাকে তাহলে গুগল সেগুলো তাদের Index ডাটা মুছে দেবে। যার ফলে আপনার পুরাতন পোস্টগুলো সার্চ ইঞ্জিনে র‌্যাংক করতে সক্ষম হবে না।
# আমার এই পোস্ট যদি আপনার ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই পোস্টটি শেয়ার করুন।
বি:দ্র:  নাসির উদ্দিন শামিম ভাইয় আশা করি এই বিষয়টি আপনি ও যদি মনে করে প্রয়োজন তাহলে বিস্তারিত আলোচনা করবে একটি পোষ্টের মাধ্যমে।
আমি যতটুকু যানি তা শেয়ার করার চেষ্টা করেছি মাত্র।  কোন বিষয়ে ভুল হলে ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবেন।

About the author

Jahangir Ahmed

You might be curious to know, who the person behind this blog? Let me introduce myself.
My name is Md. Jahangir Ahmed Joy; but everyone knows me by my nickname visual. By profession, a 23-year-old, entrepreneur, marketing geek and an occasional traveler.

I founded Skill Grow Up to spread my online journey knowledge.

It was March 2018; I was very excited to start my portfolio company Skill Grow Up .

Thanks for your query about Skill Grow Up , I appreciate it! If you have anything more to say or have any query,

You Can also follow me socially:

Thanks,

Team Skill Grow Up.

View all posts

2 Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *