গুগল অ্যাডসেন্স | সাফল্যের সিক্রেট সব টিপস।

আসালামু আলাইকুম। সবাই কেমন আছেন,আশা করছি নিশ্চয়ই ভাল আছেন । আজকে আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করবো কিভাবে বাংলা ওয়েবসাইট দিয়ে গুগল অ্যাডসেন্সে আর্ন করা যায় । চলুন তাহলে আমাদের মুল পোস্টে যাওয়া যাক ।

বাংলা ওয়েবসাইট দিয়ে গুগল এডসেন্স এর মাধ্যমে আর্ন  কিভাবে করে সেটা জানার পর্বে আপনাকে জানতে হবে গুগল অ্যাডসেন্স টা কি?

গুগল অ্যাডসেন্স

গুগল অ্যাডসেন্স একটি বিজ্ঞাপন সেবা যা আপনাকে আপনার ওয়েবসাইট বা ব্লগ, অথবা ইউটিউব ভিডিওগুলিতে বিজ্ঞাপন চালাতে দেয় এবং আপনার ওয়েবসাইটের  ট্রাফিক(ট্রাফিক হচ্ছে ভিজিটর বা মানুষ যারা আপনার ওয়েবসাইট টি ভিজিট করবে) এর এড গুলোর উপর ক্লিকের মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করতে পারেন।এখানে কোন প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপণ নেয়া হয় এবং যারা গুগল এডসেন্সের মাধ্যমে আয় করে থাকেন তাদের ওয়েব সাইটে বিজ্ঞাপণ দেয়া হয়। আর এই বিজ্ঞাপণই হলো আয়ের মূল উৎস।আপনার ওয়েবসাইট ভিজিটর কাজে লাগানোর অনেক উপায় আছে যেমন: অনেক বিজ্ঞাপন প্রোগ্রাম যা আপনাকে অর্থ উপার্জন করতে সহায়তা করে, কিন্তু সবচেয়ে জনপ্রিয় হচ্ছে গুগল এডসেন্স।

এটি মূলত একটি লাভ-অংশিদারী প্রোগ্রাম, যার মাধ্যমে গুগল ও তার ব্যবহারকারী নিজের  ওয়েবসাইটে  বিজ্ঞাপন প্রচার করে অর্থ উপার্জন করতে পারেন। এই বিজ্ঞাপন প্রোগ্রামটি গুগল দ্বারা ২০০৩  সালের মাঝামাঝি সময়ে চালু হয়েছিল এবং এটি বর্তমানে ইন্টারনেটের সবচেয়ে জনপ্রিয় বিজ্ঞাপন প্রোগ্রামগুলির একটি।

কিভাবে বাংলা ওয়েবসাইটের  মাধ্যমে  আর্ন করবেন?

গুগল অ্যাডসেন্স

বাংলা লেখালিখি যারা ভালোবাসেন তাদের জন্য গুগল এর পক্ষ থেকে একটি  সুসংবাদ হচ্ছে – দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর অবশেষে বাংলা ভাষার ওয়েবসাইটে “গুগল অ্যাডসেন্স” চালু করার ঘোষণা দিয়েছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় সার্চ ইঞ্জিন গুগল। যাদের অলরেডি বাংলা ওয়েবসাইট আছে তারা এডসেন্স এর মাধ্যমে আর্ন করতে পারেন।

যারা নতুন একটি  বাংলা ওয়েবসাইট বানাইতে চাচ্ছেন তারা নিম্নের স্টেপ গুলি ফলো করে খুব সহজেই একটি বাংলা ওয়েবসাইট এ অ্যাডসেন্স এর মাধ্যমে আর্ন করতে পারেন।

১. এমন কোনো সাবজেক্ট পসন্দ করুন যেটা নিয়ে অনেক স্টাডি বা লেখালিখি করতে আপনার ভালো লাগে

২. এডসেন্স থেকে আর্ন করতে চাইলে আপনার নিজস্ব একটি ওয়েবসাইট দরকার, তবে সেটা ফ্রি ও হতে পারে

৩. আপনি যে বিষয় এ লেখালিখি করবেন  সেই রিলেটেড ওয়েবসাইট টির সুন্দর একটি নাম বাছাই করতে হবে

৪. আপনার সাইট টি ৩০ দিন পুরোনো হইতে হবে

৫. ম্যান্ডেটরি পেজ অ্যাড করতে হবে

৬. পোস্ট ৪০ টি

৭. অর্গানিক ট্রাফিক প্রতিদিন ৫০০-১০০০ আসতে হবে সাইট টিতে

উপর এর  আলোচিত স্টেপ গুলি ফলো করলে আপনার সাইটটিতে অ্যাডসেন্স অপঃপ্রভাল সহজ হবে।

চলুন এবার আমার গুগল এডসেন্স সম্পর্কিত জ্ঞানগুলো আপনাদের সাথে শেয়ার করি। 

গুগল এডসেন্স (Google Adsense): গুগল এডসেন্স হচ্ছে গুগলের একটি সার্ভিস যার মাধ্যমে একটি ব্লগ বা ওয়েবসাইটের মালিক তার ব্লগে এড কোড বসিয়ে আয় করতে পারেন। এক্ষেত্রে গুগল তার এডভারটাইজারদের কাছে থেকে প্রাপ্ত অর্থের নির্দষ্ট পরিমান অংশ কেটে রেখে বাকিটা এডসেন্স পাবলিশারদের মধ্যে ভাগ করে দেয়।

গুগল এডসেন্সের বেসিক বিষয় সমূহ:

১। ব্লগের বিষয়বস্তু (Contents of The Blog): এক্ষেত্রে এমন একটি বিষয় আপনাকে নির্বাচন করতে হবে যেখানে প্রতিযোগিতা কম কিন্তু বিষয়ের CPC মোটামুটি ভালো। High Paying Niche এর ক্ষেত্রে প্রতিযোগীতা বেশী থাকে যেখান থেকে নতুন ওয়েবসাইটের জন্য ভিজিটর পাওয়া বেশ কষ্টসাধ্য ব্যাপার। বিপরীতে আপনি যদি এরকম একটা Niche নির্বাচন করেন যেখানে প্রতিযোগীতা কম কিন্তু লোকাল সার্চ মোটামুটি ৩০০০- ৪০০০ বারের মধ্যে আছে; এরকম ক্ষেত্রে আপনি বেশী ভিজিটর আশা করতে পারেন। আর বেশী ভিজিটর মানেই হচ্ছে বেশী ক্লিক, বেশি ইনকাম।

২। ব্লগের ডিজাইন (Design of The Blog): এডসেন্স থেকে যদি আয়ের ইচ্ছা থাকে তাহলে এমনভাবে আপনার ব্লগ বা সাইটের ডিজাইন করুন যাতে “Adsense Heatmap” অনুযায়ী সবচেয়ে বেশি ক্লিক পড়ে এরকম জায়গায় এড বসাতে পারেন। এতে করে CTR বাড়বে; সুতরার আপনার আর্নিংও বেড়ে যাবে। 

৩। এডের সাইজ এবং এড বসানোর স্থান (Size of the Ad Block & Appropriate Places): আমি নিজের অভিজ্ঞতা থেকে দেখেছি; পোস্ট টাইটেলের নিচে “Large Reactangle” এড ব্লকটা বেশ কাজে দেয়। ব্লগের Header এর Navigation বারের নিচে যদি 728×15 এর একটা লিংক ইউনিট বসিয়ে দিতে পারেন তাহলে ইনকাম বেড়ে যাবে দ্বিগুন। আর আমি ব্যাক্তিগতভাবে ইমেজ এড ব্যবহারের পক্ষপাতি না। এডসেন্স বিষেষজ্ঞ “Joel Comm” এর মতে এডসেন্স পাবলিশারদের সবচেয়ে বড় ভুল হচ্ছে Adsense Ad কে সাধারন এডের মত “Look” দেয়া। আপনি যদি একটা ইমেজ এড সাইডবারে লাগান, যে কোন আনাড়ি ভিজিটরও ধরে ফেলবে এটা একটা এড। কারন প্রায় সব ইন্টারনেট ব্যবহারকারীই জানে “Banner Image” বা  “Sidebar image” গুলা বেসিক্যালি স্পনসর এড বা এড টাইপের একটা কিছু। বদলে, টেক্সট এড ব্যবহার করুন। সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে Experiment করুন। এডসেন্স চ্যানেল ব্যবহার করুন। যে এড ব্লকটি ভালো পারফর্ম করছে না, ওটা সরিয়ে অন্য কোন জায়গায় লাগিয়ে দেখুন কেমন কাজ করে। সবধরনের সাইটে গতানুগতিক এডসেন্স ব্লক কাজ নাও করতে পারে।

৪। এডের রং (Color of Ads):  আপনার ব্লগের প্রাইমারী লিংক কালার যা দিয়েছেন, এডসেন্সের টাইটেল লিংকটাও একই কালারের রাখুন। আমি পরীক্ষা করে দেখেছি; ব্লগের লিংক কালার গাঢ় নীল (0000FF) রেখে যদি এডের টাইটেল কালারও গাঢ় নীল রাখা যায় তাহলে CTR হু হু করে বেড়ে যায় । এডসেন্সের ব্যাকগ্রাউন্ড আপনার সাইটের ব্যাকগ্রাউন্ডের সাথে মিলিয়ে নিন। বর্ডার ছাড়া এড ব্লক, বর্ডার দেয়া এড ব্লকের চেয়ে বেশী কাজ করে বলে আমার মনে হয়।

সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ন কথা হলো- এক্সপেরিমেন্ট এর কোন বিকল্প নেই। এডসেন্সের কালার এবং প্লেসমেন্ট নিয়ে প্রতিনীয়ত পরীক্ষা নিরীক্ষা করুন। এরকমও তো হতে পারে যে, আপনার সাইটে প্রচলিত এডসেন্স ব্লক কাজ করছে না। বরং একদম আনকমন একটা এড ব্লক বেশ কাজ করছে।

উপরে উল্লেখিত এডসেন্স টিপসগুলা একটাও কাজে আসবেনা যদি আপনার পেজ ইম্প্রেশন ভালো না হয়। এক্ষেত্রে যা করবেন তা হচ্ছে- যত বেশী সম্ভব পোস্টের সংখ্যা বাড়ান। আপনার ব্লগের যত বেশী পোস্ট থাকবে, ভিজিটররা তত বেশী সময় ধরে আপনার সাইটে থাকার অবকাশ পাবে। এতে ক্লিক পড়বে বেশী । আরো একটি কাজ করতে পারেন- আপনি আপনার ব্লগে যেকোন External Link বসানোর পরে লিংকটি target=”_blank” দিয়ে অন্য ট্যাবে ওপেন করতে বলে দিন। 

২০১৫ সালেই  গুগল অ্যাডসেন্স প্রকাশকদের প্রায় ১০ বিলিয়ন ডলার পেমেন্ট দিয়েছে, এদিকে বিশ্বের প্রায় দেড় কোটি ওয়েবসাইটে গুগল অ্যাডসেন্স ব্যবহার করা হচ্ছে। সংশ্লিষ্টদের দাবি বাংলা ভাষায় অ্যাডসেন্স চালু হওয়ার কারণে এ সংখ্যায় নতুনমাত্রা যুক্ত হবে। গুগলের ব্লগপোস্টে গুগল বলছে-  বাংলাদেশ, ভারতসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বাংলা ভাষার ব্যবহার প্রচুর বৃদ্ধি পেয়েছে এবং এসব বিষয় বিবেচনা করেই বাংলায় গুগল অ্যাডসেন্স সেবা চালু করা হল।

আপনার বাংলা লেখার হবি টি হতে পারে আপের আর্নিং এর কারণ গুগল অ্যাডসেন্স এর মাধ্যমে। তাহলে আর দেরি না করে আজকে থেকেই আপনার বাংলা ওয়েবসাইট টি নিয়ে প্ল্যানিং শুরু করে দেন আর কিছু জানার থাকলে কমেন্ট করে আমাকে জানাবেন, ধন্যবাদ ।

আপনার যে কোন প্রশ্ন, সমস্যা, অভিজ্ঞতা শেয়ার করতে পারেন আমাদের সাথে ২ ভাবে মেইল ও কমেন্ট এর মাধ্যমে । কমেন্ট এর মাধ্যমে হেল্প চাইলে নিচে কমেন্ট করুন। মেইল এর মাধ্যমে যোগাযোগ করতে চাইলে আমাদের কনটাক আস পেজ যোগাযোগ করতে পারেন ।

আজ যাচ্ছি আগামী কোন লিখাতে আপনাদের সামনে হাজির হব নতুন কোন এসইও ও সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং নিয়ে কোন নতুন কোন পার্ট নিয়ে । আল্লাহ হাফেজ ।

5 thoughts on “গুগল অ্যাডসেন্স | সাফল্যের সিক্রেট সব টিপস।

  1. আমার ১ টা ওয়েবসাইট আছে এখন আমি ওই gmail ID দিয়া যদি ব্লগার বা ওয়ার্ডপ্রেস এ ফ্রি ওয়েবসাইট খুলি তবে গুগল কি PBN এর জন্য পেনাল্টি দিবে? আর ১ তা মেইল id দিয়ে কয়টা ফ্রি ওয়েবসাইট করা যাই ,যদিও ওই মেইল ID দিয়ে .COM এর ওয়েবসাইট থাকে ??

  2. খুব ভালো একটি পোস্ট করার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।আমি একটি বাংলা ব্লগ চালাই ব্লগার টিউটরিয়াল নিয়ে আমি কি এডসেন্স আপ্লাই করতে পারি। ধন্যবাদ

  3. আমি আমার বাংলা গল্পের ব্লগে এডসেন্স পেয়েছি bhootgoyenda.blogspot.com তবে এতে কখনোই ৫০০-১০০০ রেগুলার ইউনিক ভিজিটর আসে না , আমার মনে হয় ভিজিটরের সংখ্যা গুগল কাউন্ট করেনা

Leave a Reply